Ad Code

মোবাইল দিয়ে আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা সম্ভব ?

"আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং" অনলাইন পাড়ায় টাকা ইনকামের সবচেয়ে বেশি আলোচিত টপিক। অনলাইনে অর্থ উপার্যনের জন্য অনেকেই এখন আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংকে পেশা হিসাবে বেছে নিচ্ছে। টাকা ইনকামের খুবই জনপ্রিয় একটা মাধ্যম আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। চলুন জেনে নেই আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং জিনিসটা কি? এবং মোবাইল দিয়ে কি আসলেই আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করা যায়??   আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
  
#আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি? এবং এটি কিভাবে কাজ করে? মনে করুন আমার একটি "জুতার" দোকান আছে। কিন্তু আমার দোকানে বেচা-কেনা খুব বেশি হয় না। আমার দোকানের বেচা-কেনা বাড়ানোর জন্য আমি কিছু "লোক" নিয়োগ দিলাম যারা আমার জুতা আমার দোকানে রেখেই বাইরে আমার দোকানের "টি-শার্ট" পরে আমার দোকানের মাল বিক্রি করে আসবে। তাতে আমার দোকানের বিক্রি বাড়বে এবং বিনিময়ে সেই ব্যাক্তিগন আমার দোকানের জুতা বিক্রির জন্য নির্দিস্ট পরিমান মুনাফা পাবেন। 
#আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
এই ঘটনায় বিবেচ্য বিষয়গুলোঃ  ‌
  • এই ঘটনায় বিক্রির জন্য যে পন্য (জুতা) নির্ধারণ করা হয়েছে সেটা হল মার্কেটিং এর নিশ। 
  • ‌দোকানের জুতা বিক্রির জন্য যে লোকদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে তারা আ্যাফিলিয়েট মার্কেটার। ‌
  • আ্যাফিলিয়েট মার্কেটার নির্দিস্ট নিশের পন্য নিয়ে যেখানে বিক্রি করবে সেটা হল তার প্লাটফর্ম সেটা হতে পারে তার নিজের ব্লগ সাইট, অথবা সেটা হতে পারে অন্যের ওয়েবসাইটে গেস্ট পোস্টিং, সে তার নিশের পন্যটি ইউটিউবে কন্টেন্ট তৈরি করেও বিক্রি করতে পারে।  ‌
  • নিশ প্রোডাক্ট বিক্রির জন্য আ্যাফিলিয়েট মার্কেটারকে প্রতি ইউনিট ভিত্তিক অথবা নির্দিস্ট পরিমান ভিত্তিক পেমেন্ট করা হয়ে থাকে।  
উপরে একটি ছোট ঘটনার দ্বারা আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং তা থেকে একজন আ্যাফিলিয়েট মার্কেটার কিভাবে লাভবান হতে পারে তা ব্যাখ্যা করা হল। 

এবার চলুন জেনে নেই হাতের স্মার্টফোনটা দিয়ে কি আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা যাবে?? 
আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
উত্তরটা সংক্ষেপ। 
হ্যা যাবে, 
বর্তমানে হাতের স্মার্টফোনের মাধ্যমে জায়গায় বসেই কয়েক সেকেন্ডের ভেতর মোবাইল ব্যাংকিং থেকে যে কোন নাম্বারে রিচার্জ করা যাছে চোখের পলকে। শুধু তাই না, টেলিভিশন বা প্রিন্ট মিডিয়া প্রচার হওয়ার আগেই বিশ্বের যে কোন প্রান্তের খবর কয়েক সেকেন্ডের ভেতর চলে আসে হাতের মুঠোয়। স্মার্টফোন দিয়ে যদি এতকিছু সম্ভব হয়ে থাকে তবে আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা যাবে না? 
আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
অবশ্যই করা যাবে তার জন্য আ্যাফিলিয়েট মার্কেটারকে হতে হবে ধৈর্যশীল। মার্কেটারকে তার নিশ রিলেটেড প্লাটফর্ম বা ওয়েবসাইটটি সাজাতে হবে আকর্ষনীয় ভাবে। যাতে কোন ক্রেতা যদি তার ওয়েবসাইটে আসে অথবা কোথাও তার লেখা পড়ে তবে সে যেন আ্যাফিলিয়েট মার্কেটারের কাছ থেকে পন্যটি কিনতে আগ্রহী হয়। আর এই সাধারন কাজ করার জন্য হাতের স্মার্টফোনটি কার্যকর ভুমিকা পালন করতে পারে। শুধু বাংলাদেশ না, বিশ্বের বড় বড় দেশের বড় বড় ফ্রিল্যান্সাররা আ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে প্রচুর টাকা ইনকাম করেছে। আশাকরি আপনিও পারবেন। এমন আরও অনেক টিপস এবং ট্রিকস জানতে chanumia.com এর সাথেই থাকুন।

Post a Comment

0 Comments

Close Menu